তিন বছর ধরে ধর্ষণ ধর্ষক শিক্ষক গ্রেপ্তার

তিন বছর ধরে ধর্ষণ ধর্ষক শিক্ষক গ্রেপ্তার

দেশ ডেস্ক :
পটুয়াখালীর গলাচিপায় প্রাইভেট পড়ানোর নামে তিন বছর ধরে এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে মোঃ রুহুল আমিন পেয়াদার নামের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। পুলিশ ওই শিক্ষককে ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার করেছে। ধর্ষক শিক্ষক পুলিশের কাছে এ অভিযোগ স্বীকার করেছেন। পুলিশ তাকে আদালতে সোপর্দ করেছে। এ ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে শিক্ষককে আসামি করে ধর্ষণের অভিযোগ এনে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। একই স্কুলের ওই ছাত্রী অষ্টম শ্রেণীতে পড়ার সময় থেকে শিক্ষক রুহুল আমিনের কাছে ইংরেজি প্রাইভেট পড়া শুরু করে। এ সময় রুহুল আমিন ছাত্রীটিকে বিভিন্ন সময়ে কুপ্রস্তাব দেয়। এতে ছাত্রী রাজি না হওয়ায় ইংরেজি পরীক্ষায় ফেল করানোর হুমকি দেয়। ভয়ভীতির এক পর্যায়ে তিনি ছাত্রীর সঙ্গে অনৈতিক শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন। গত তিন বছর ধরে বিভিন্ন সময়ে তিনি ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে আসছেন।
সর্বশেষ বাঁশবাড়িয়া গ্রামের জনৈক নাসির খানের ফাঁকা বাড়িতে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে শিক্ষক রুহুল আমিন ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন। ওই ছাত্রী বর্তমানে পটুয়াখালী জেলা শহরের একটি কলেজে এইচএসসি প্রথম বর্ষে পড়াশুনা করছেন। কলেজ হোস্টেলের সহপাঠীদের মাধ্যমে ধর্ষণের ঘটনাটি ফাঁস হয়ে যায়।  মামলার বিবরণ, পরিবার ও অন্যান্য সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক মোঃ রুহুল আমিন পেয়াদা (৩২) গলাচিপা উপজেলার চিকনিকান্দী ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামের আঃ করিম পেয়াদার ছেলে। তিনি ২০০৪ সালে উপজেলার বকুলবাড়িয়া ইউনিয়নের গুয়াবাড়িয়া এবি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কম্পিউটার শিক্ষক হিসেবে যোগ দেয়। এর পাশাপাশি সে স্কুলে ইংরেজি বিষয়েরও শিক্ষক। গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জাহিদ হোসেন জানান, শিক্ষক রুহুল আমিন পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন।