মারা গেল সাপে কাটা যুবক

মারা গেল সাপে কাটা যুবক

ফরিদপুর প্রতিনিধি: ‘হুনছি আগে যেই সগল সাপে কাটা রুগী হাসপাতালে গেছে, তাগোর ব্যাকটিরে ইনজেকশন দিয়ার পর মইরা গেছে। আমার ছাওয়ালরে আমি ইনজেকশন দিতে দিমু না।’ বিষধর সাপে কাটার পর ওঝার চিকিৎসা না নিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ জানালে উপজেলা চেয়ারম্যান ও সাংবাদিকদের সামনে এভাবেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের গোপালপুর চরের লালু মোল্যা। গত সোমবার বেলা ১১টার দিকে বাড়ির পাশে মাঠে গরু চড়াতে গেলে সাপে কাটে তার ছোট ছেলে ফরহাদ মোল্যাকে (৩০)। এরপর সাপে কাটা ছেলেকে সুস্থ করে তোলার জন্য দুই দফায় বিভিন্ন ওঝা দিয়ে ঝাড়ফুঁক চালায়। ওঝার ঝাড়ফুঁকের ১৭ ঘন্টা পর আজ মঙ্গলবার ভোররাত ৪টার দিকে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়ে আদরের সন্তান ফরহাদ। কুসংস্কারের শিকার হয়ে তরতাজা যুবকের এমন এক জ্বলজ্যান্ত মৃত্যুর ঘটনাটি পুরো গ্রামে ব্যাপক নাড়া দিয়েছে। শোকের পাশাপাশি সেখানে অপচিকিৎসার বিরুদ্ধে ক্ষোভও ছিল। খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুন নাহার ও উপজেলা চেয়ারম্যান এজিএম বাদল আমিন নিহতের বাড়িতে যান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঘটনাটিকে মর্মান্তিক ও দুঃখজনক উল্লেখ করে জানান, উপজেলা হাসপাতাল ছাড়াও চারটি ইউনিয়নের নয়টি কমিউনিটি ক্লিনিকে বিষাক্ত সাপে কামড়ানো চিকিৎসার ভ্যাকসিন পাওয়া যাচ্ছে।