Home / শিক্ষা / করোনায় বয়সসীমা অতিক্রান্ত বিসিএস প্রার্থীদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে সরকার – বিসিএস

করোনায় বয়সসীমা অতিক্রান্ত বিসিএস প্রার্থীদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে সরকার – বিসিএস


অনলাইন ডেস্ক:

বিসিএস পরীক্ষার আবেদন ও পরীক্ষার তারিখ পিছিয়ে দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার তারিখের সাথে সমঞ্জস্য রেখে পরীক্ষার নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে। আর করোনার কারণে যেসব শিক্ষার্থীর বয়সসীমা অতিক্রান্ত হয়ে বিসিএসের আবেদন করার ক্ষেত্রে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন তাদের বিষয়ে সরকার ব্যবস্থা নেবে। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী আরও জানান, ঈদুল ফিতরের পরে আগামী ২৪ মে দেশের সব পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ক্লাস শুরু হবে। আর এর এক সপ্তাহ আগে ১৭ মে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আবাসিক হলগুলো খুলে দেয়া হবে। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আবাসিক সব শিক্ষার্থীসহ শিক্ষক-কর্মচারীদের করোনা টিকার আওতায় আনা হবে। আর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সব আবাসিক শিক্ষার্থীদের টিকা নিয়েই হলে উঠতে হবে। 

মন্ত্রী আরও বলেন, আর ২৪ মে পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অনলাইন ক্লাস চলবে। এ সময়ের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন পরীক্ষা হবে না। এ নির্দেশনা সব পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। 

তিনি আরও বলেন, হলগুলো দীর্ঘ এক বছর ধরে ব্যবহৃত হচ্ছে না। তাই, ১৭ মের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর হলগুলো সংস্কার করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যেন শিক্ষার্থীরা থাকতে পারেন সে ব্যবস্থাও করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে। 

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, করোনায় বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় যেসব শিক্ষার্থী বিসিএসের আবেদন করার দিক থেকে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন তাদের বিষয়ে সরকার ব্যবস্থা নেবে। 



সব শিক্ষার্থীকে টিকা নিয়ে হলে প্রবেশ করতে হবে কিনা প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কোন আবাসিক শিক্ষার্থীর যদি কোন মেডিকেল কন্ডিশন থাকে যে কারণে সে টিকা নিতে পারেনি তাহলে তার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। তাছাড়া সব আবাসিক শিক্ষার্থীদের টিকা নিয়ে হলে উঠতে হবে।  

এর আগে মন্ত্রী পরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদেরকে জানান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দ্রুত খোলার পরিবেশ হয়েছে কিনা তা পর্যালেচনার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৫ থেকে ৬ দিনের মধ্যে এ নিয়ে সভা হবে। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয়টি দেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল খুলে দেয়ার ব্যাপারে ৫-৬ দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে একটি কমিটি করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তারা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবেন।

দুপুরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আবাসিক হল ও ক্যাম্পাস খোলার দাবিতে চলমান আন্দোলন আগামী বুধবার পর্যন্ত স্থগিত করেছেন। আজ সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে প্রক্টরের আশ্বাসের পর পূর্বঘোষিত কর্মসূচি থেকে তাঁরা এই সিদ্ধান্ত জানান।

আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের শতাধিক শিক্ষার্থী জড়ো হন। সেখানে তাঁরা আজকের কর্মসূচির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। পরে সেখানে প্রক্টর লুৎফর রহমান উপস্থিত হন। তিনি শিক্ষার্থীদের বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের উচ্চপর্যায়ে কথা বলার আশ্বাস দেন। এতে শিক্ষার্থীরা দিনের কর্মসূচি স্থগিত করেন।

সেখানে শিক্ষার্থীরা সাংবাদিকদের বলেন, তাঁরা দীর্ঘদিন ধরে ক্যাম্পাসের বাইরে আছেন। করোনার কারণে তাঁদের অনেকের অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ হয়ে গেছে। ফলে তাঁদের পক্ষে আর মেসে থাকা সম্ভব হচ্ছে না। তাঁরা ক্লাসরুমে ফিরতে চান।

-অনলাইন ডেস্ক