টিকা তৈরির কাঁচামাল নিয়ে ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউটের উদ্বেগ |

করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়ার গতি সারাবিশ্বেই বাড়ছে। তবে টিকা তৈরির কাঁচামালের ঘাটতি দেখা দিয়েছে। এ ব্যাপারে বিশ্ব ব্যাঙ্কের একটি প্যানেলে একযোগে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আদার পুনাওয়ালা এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) মুখ্য বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীনাথন।

জানা গেছে, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ড এবং নোভাভ্যাক্সের টিকা তৈরির বরাত পেয়েছে বিশ্বের সব চেয়ে বেশি টিকার উৎপাদক সংস্থা ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট। 

আদার পুনাওয়ালা অভিযোগ করে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের একটি আইনের কারণে সে দেশ থেকে ব্যাগ এবং ফিল্টারসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ নিয়ে আসা যাচ্ছে না।

সৌম্যা স্বামীনাথন জানান, ভায়াল, কাচ ও প্লাস্টিকের পর্যাপ্ত সরবরাহ নেই। এ কারণে টিকা উৎপাদক সংস্থাগুলো ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। 

তিনি আরো বলেছেন, এ বছরের গত দুই মাসে ৫১টি দেশে সেরাম ইন্সটিটিউট ৯ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহ করেছে। এজন্য  কিছু উপকরণ যুক্তরাষ্ট্র থেকে দরকার। সারা বিশ্বের টিকা উৎপাদনের ক্ষমতা বাড়ানোর কথা বলছি, কিন্তু এই সমস্ত কাঁচামাল যোগানোর বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। তা নিয়ে এখনো কেউ কিছু করতে পারেনি।

পুনাওয়ালা আরো বলেন, জো বাইডেন প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা প্রয়োজন। তাদের বোঝানো দরকার যে, সব কিছুই যথেষ্ট পরিমাণে আছে। আমরা সারাবিশ্বে নিখরচায় টিকা সরবরাহের কথা বলি। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র থেকে যদি কাঁচামালই না-আসে, তা হলে বিষয়টা গুরুতর হয়ে দাঁড়াবে।

স্বামীনাথন বলেন, কাঁচামালের অভাব রয়েছে। এ নিয়ে সারাবিশ্বে সমঝোতা দরকার। রপ্তানি যেন নিষিদ্ধ না-হয়, তা নিয়ে সমন্বয় দরকার।

সামনের সোমবার ও মঙ্গলবার টিকা সংক্রান্ত সহযোগীদের সঙ্গে এ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বৈঠকে বসবে বলে জানা গেছে।

সূত্র: আরব নিউজ


-Kalerkantho