শেষ হলো বুড়িগঙ্গ নদী উৎসব |

বর্ণাঢ্য আয়োজনে সমাপ্ত হলো ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ কনসোর্টিয়াম ও বুড়িগঙ্গা নদী মোর্চা আয়োজিত দু’দিনের বুড়িগঙ্গা নদী উৎসব। রাজধানী ঢাকাকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করে একটি বাসযোগ্য নগরী হিসাবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে আজ শনিবার দ্বিতীয় দিনে বছিলা প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বিষয়ভিত্তিক আলোচনা, প্রদর্শনী, পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। 

সকালে জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে উৎসবের সূচনা করা হয়। এরপর পায়রা উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট সুলতানা কামালের সভাপতিত্বে এবং ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশের সমন্বয়ক শরীফ জামিলের সঞ্চালনায় ওই অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার তাকসিম এ খান, ঢাকা উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, ঢাকা দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, ইউএসএআইডি’র প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট স্পেশালিস্ট-সিভিল সোসাইটি অ্যাডভাইজার সুমনা বিনতে মাসুদ, কাউন্টারপার্ট ইন্টারন্যাশনালের প্রোমোটিং অ্যাডভোকেসি অ্যান্ড রাইটস (পার) প্রকল্পের ডেপুটি চিফ অব পার্টি শাহিদ হোসেন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৩৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিল আসিফ আহমেদ প্রমূখ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে ‘বুড়িগঙ্গা উৎসবের কথা: একটি জীবন্ত সত্ত্বা’ শীর্ষক এক বিষয়ভিত্তিক অধিবেশনে আলোচক ছিলেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবি সমিতি (বেলা)’র নির্বাহী প্রধান সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। এরপর স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আহমদ কামরুজ্জামান মজুমদারের সভাপতিত্বে ‘বুড়িগঙ্গার গল্প’ শীর্ষক আরো একটি অধিবেশন অুষ্ঠিত হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. মো. নূরুল ইসলাম, পশুর রিভারকিপার নূর আলম শেখ, খোয়াই রিভারকিপার তোফাজ্জল সোহেল, সুরমা রিভারকিপার আব্দুল করিম কিম প্রমূখ। এসময় ডিঙ্গি নৌকা প্রতিযোগিতা ও শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

এর আগে বিকেলে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন ছিলো। যুব বাপা কর্মসূচির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট রাওমান স্মিতা’র সঞ্চালনায় এই পর্বে গান ও নৃত্য পরিবেশন করেন সিলেট অঞ্চলের আদিবাসী চা শ্রমিকদের সংগঠন প্রতীক থিয়েটার। এসময় বক্তৃতা করেন বাপার প্রতিষ্ঠাতা কামরুল আহসান খান, বুড়িগঙ্গা বাঁচাও আন্দোলনের সমন্বয়ক মিহির বিশ্বাস, নিরাপদ ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ইবনুল সায়িদ রানা, রিভার অ্যান্ড ডেল্টা রিসার্চ সেন্টার এর চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এজাজ, বনলতা নারী উন্নয়ন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ইশরাত জাহান লতা, স্থানীয় সমাজকর্মী লাট জামাল হোসেন জামিল প্রমূখ।

সমাপনী বক্তব্যে ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশের সমন্বয়ক শরীফ জামিল বলেন, বুড়িগঙ্গাকে বাঁচাতে পদক্ষেপ গ্রহণে বিজ্ঞানভিত্তিক তথ্য দিয়ে আমরা সরকারকে সহযোগিতা করতে চাই। সরকারের নদী বিষয়ক পরিকল্পনার সাথে নদী পাড়ের মানুষদেরকে অনুর্ভূক্ত করতে হবে। এসময় তিনি শ্যামপুর ডায়িং এর বর্জ্য পরিশোধনের জন্য ইটিপি স্থাপনের জন্য জায়গা বরাদ্দের উদ্যোগ নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানান।  


-Kalerkantho