কলাপাড়ায় চাষাবাদের জমি দখল করে গাছপালা উপড়ে ফেলার অভিযোগে-সংবাদ সম্মেলন

কলাপাড়ায় চাষাবাদের জমি দখল করে গাছপালা উপড়ে ফেলার অভিযোগে-সংবাদ সম্মেলন

মোয়াজ্জেম হোসেন পটুয়াখালী প্রতিনিধি : কলাপাড়ায় চাষাবাদের জমি দখল করে গাছপালা উপড়ে ফেলার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বৈদ্যপাড়া গ্রামের প্রান্তিক কৃষক তারিকুজ্জামান মিলন। এমনকি বসতবাড়িও দখল করে প্রাননাশের হুমকি পর্যন্ত তাদের দেয়া হয়েছে। এমন অভিযোগ এনে শনিবার বেলা ১২টায় কলাপাড়া রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন মনিরুজ্জামান মিলন। মনিরুজ্জামান মিলনের পক্ষে লিখিত বক্তব্যে তার ভাই তারিকুজ্জামান বলেন, লেমুপাড়া মৌজার এসএ ১৪ ও ১৫৭ নম্বর খতিয়ানের নয় একর জমি তার মামা নেছারউদ্দিন ৩৩৮৫/২০১৭ নম্বর হেবা দলিলের মাধ্যমে ২০১৭ সালের ১৩ জুলাই মা হাজেরা বেগমকে প্রদান করে দেন। ওই জমিতে তারা বসবাস করে আসছেন। যেখানে পুকুরসহ বাড়িঘর রয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করে স্থানীয় মো: রহিমের ছেলে মো: রেজাউলের নেতৃত্বে ২২ মার্চ থেকে বেকু মেশিন লাগিয়ে জমির মালিকানা দাবি করে তাদের দখলীয় জমির কিছু গাছপালা উপড়ে ফেলতে থাকে। এ ঘটনার জন্য তিনি পটুয়াখালীর ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমানসহ কয়েকজনকে দায়ী করেন। তারিকুজ্জামান অভিযোগ করে বলেন, বর্তমানে তাদের মায়ের জমিজমাসহ বাড়িঘর দখলের ষড়যন্ত্র চলছে। নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন। অপরদিকে হাফিজুর রহমানের জমিজমা দেখাভাল করার জন্য নিয়োজিত কর্মচারী মো: রেজাউল জানান, এই জমি নেছারউদ্দিনের কাছ থেকে কিনে পটুয়াখালীর কয়েকজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী তাদের জায়গা বুঝে নিচ্ছেন। বাড়িঘর দখলের কথা মিথ্যা। এর বেশি কিছু তিনি জানেন না।
কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: আলাউদ্দিন আহমেদ মিলন জানান, একটি অভিযোগ তার কাছে দেয়া হলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় উভয়পক্ষকে নোটিশ করা হয়। কিন্তু বাদীপক্ষ নির্দিষ্ট তারিখে আসেনি। বিবাদীপক্ষ তাদের কাগজপত্র দলিলসহ দেখিয়েছেন।