জেনে নেই পান্তা ভাতের পুষ্টি গুণ

জেনে নেই পান্তা ভাতের পুষ্টি গুণ

লাইফস্টাইল ডেস্ক:  বাংলাদেশে অনেক মানুষের সকালে দিন শুরু হয় পান্তা ভাত খেয়ে । গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষগুলোর পান্তা ভাতের সাথে আর তেমন কিছুই লাগে না ।শুধু মাত্র লবণ, কাঁচা মরিচ ও পেঁয়াজ মিশিয়ে পান্তা ভাত খাওয়া হয় তাঁদের । আর সারা বছর শহুরে মানুষগুলো সার বছর পান্তা না খেলেও পহেলা বৈশাখের সকালে ঠিকই পান্তা ভাতকে তারা হাজির করেন তাদের খাবার টেবিলে। পুষ্টিবিদরা বলছেন গরম ভাতের চেয়ে পান্তা ভাতে গুন পুষ্টি রয়েছে। যা শরীরকে রাখে চাঙ্গা আর রোগবালাই মুক্ত । পান্তা ভাতের পুষ্টি গুণ সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক। ভাত মূলত পুরোটাই শর্করা। ভাতে পানি দিয়ে রাখলে বিভিন্ন গাজনকারী ব্যাক্টেরিয়া বা ইস্ট এই শর্করা ভেঙ্গে ইথানল ও ল্যাকটিক এসিড তৈরি করে। ল্যাকটিক এসিড তৈরির ফলে পান্তা ভাতের অম্লত্ব বেড়ে যায় (pH কমে) তখন পচনকারী ও অনান্য ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাক ভাত নষ্ট করতে পারে না। সম্প্রতি আসাম কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক একটি বৈজ্ঞানিক পরীক্ষায় দেখেছেন যে ১০০ গ্রাম পান্তা ভাতে (১২ ঘণ্টা পর ভিজিয়ে রাখার পর) ৭৩.৯১ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে যেখানে সমপরিমাণ গরম ভাতে থাকে মাত্র ৩.৪ মিলিগ্রাম। এছাড়াও ১০০ গ্রাম পান্তাভাতে পটাশিয়ামের পরিমাণ বেড়ে হয় ৮৩৯ মিলিগ্রাম এবং ক্যালসিয়ামের পরিমাণ বেড়ে হয় ৮৫০ মিলিগ্রাম যেখানে সমপরিমাণ গরম ভাতে ক্যালসিয়াম থাকে মাত্র ২১ মিলিগ্রাম। এছাড়া পান্তা ভাতে সোডিয়ামের পরিমাণ কমে হয় ৩০৩ মিলিগ্রাম যেখানে সমপরিমাণ গরম ভাতে সোডিয়াম থাকে ৪৭৫ মিলিগ্রাম।তাছাড়া পান্তা ভাতে ফারমেন্টেশনের ফলে পাকস্থলীতে প্যানক্রিয়াটিক অ্যামাইলেজ সহ আরও কিছু এনজাইমের কার্যকারিতা বহুগুণ বেড়ে যায়। এছাড়া পান্তা ভাত ভিটামিন বি-৬ এবং ভিটামিন বি-১২ রয়েছে ।পান্তাভাত শর্করাসমৃদ্ধ জলীয় খাবার। গরমের দিনে শরীর ঠান্ডা ও সতেজ রাখে।  পেটের ব্যথা ভালো হয়, কোষ্টকাঠিন্য দূর হয় এবং শরীরে সজিব থাকে।  ।