Thursday , 21 October 2021
সুস্থ থাকতে হলে সাঁতার জানুন

সুস্থ থাকতে হলে সাঁতার জানুন

লাইফস্টাইল ডেস্ক :
দৌড়ের মতো সাঁতার চমত্কার একটি ব্যায়াম। পুরো শরীরের ব্যায়ামের জন্য সাঁতার খুবই উপকারী। সাঁতার কাটলে শরীরের প্রায় প্রতিটি অঙ্গপ্রতঙ্গ সচল থাকে। যেকোনো বয়সের মানুষের জন্য শরীর সুস্থ রাখতে নিয়মিত সাঁতারের বিকল্প হতে পারে না। এটি অনেক রোগ হওয়ার আশঙ্কাও কমায়। তাই ভয় দূর করে শিখে নিতে হবে সাঁতার। তবে এই সাঁতারের কিছু কৌশল, ধরণ আছে। আমরা জেনে নিই সাঁতার কেন এত উপকারী এবং কীভাবে একে কাজে লাগানো যায়:সাঁতার কেন উপকারী • শরীরের কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেম ভালো রাখে সাঁতার । হৃদস্পন্দন, রক্তসঞ্চালন ভালো হয়। হৃদপিণ্ডে চর্বি জমা বা ব্লকের মতো সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা কমায়।  • ফুসফুসের কর্মক্ষমতা বাড়ায়, শ্বাস-প্রশ্বাস সচল রাখে।  • কোমর ব্যথা, জয়েন্টে ব্যথা- এসব ক্ষেত্রেও সাঁতার কাজ করে।  • শরীরের পানি ধরে রাখে এবং খনিজ লবণের ওপর প্রভাব ফেলে না।  • উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস এসব রোগীর ক্ষেত্রে সাঁতার বেশ ভালো কাজ করে।  • শরীরের খারাপ কোলেস্টেরল কমিয়ে ভালো কোলেস্টেরল বাড়ায়। • সাঁতার কাটলে শরীরের বাড়তি ওজন দূর হয়।

সাঁতারের নিয়ম-সাঁতারের বিভিন্ন নিয়ম থাকলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বাটারফ্লাই পদ্ধতিতে সাঁতার কাটা শেখানো হয়। এ ক্ষেত্রে সারা শরীরে ভারসাম্য রেখে এক হাত সামনের দিকে আরেক হাত পেছনের দিকে দিয়ে সাঁতার কাটতে হবে। পাশাপাশি দুই পাশে মাথা নাড়াতে হবে। শ্বাস নিতে হবে এবং ছাড়তে হবে। যদি এ সময় শ্বাস-প্রশ্বাস সচল না রাখা হয় তবে ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

সময়-বলা হয়, সাঁতার কাটার সবচেয়ে ভালো সময় সকালবেলা। এ ক্ষেত্রে সাঁতার কাটার আগে শরীরকে প্রস্তুত করে নিতে হবে। পানীয় জাতীয় খাবার (পানি, ডাবের পানি) খেয়ে সাঁতার কাটতে হবে। সাঁতারের আগে কোনোভাবেই ভারী খাবার খাওয়া যাবে না।

সাবধানতা -যাঁরা অতিরিক্ত হৃদরোগের সমস্যায় ভুগছেন তাদের ক্ষেত্রে সাঁতার কাটতে গেলে জটিলতা হতে পারে। তাই সাঁতার কাটার সময়ের দিকে তাদের বিশেষ নজর রাখতে হবে। প্রতিটি ব্যায়ামের ক্ষেত্রে কিছু নিয়মকানুন থাকে। আর বিভিন্ন স্বাস্থ্যগত সমস্যায় একজন ব্যক্তি কীভাবে সাঁতার শুরু করবেন তা আগেই জেনে নেওয়া ভালো। যেকোনো ব্যায়ামের আগেই প্রশিক্ষকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। সুস্থ দেহের অধিকারী হতে সাঁতারকে অভ্যাসে পরিণত করলে শরীর আর মন দুটোই ভালো থাকবে।