পীরগাছা কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হালিমের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা কর্মস্থলে লাপাত্তা

পীরগাছা কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হালিমের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা কর্মস্থলে লাপাত্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক : রংপুরের পীরগাছা উপজেলা কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হালিম চাকুরীর পাশাপাশি একজন দাদন ব্যবসায়ী হিসেবে এলাকায় বেশ পরিচিত । তার খপ্পরে পরে কৃষি অফিসের একাধিক কর্মকর্তা দাদনের টাকা নিয়ে পথে বসেছে। অনেকেই তার দাদনের টাকা সুদ-আসলে পরিশোধ করার পরও সে আরো টাকার দাবী করে। এর প্রতিকার চেয়ে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামের রজ্জব আলীর পুত্র গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাবেক সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার বজলার রহমান রাজা পীরগাছা কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হালিমসহ ৭ জনের নাম উল্লেখ করে গাইবান্ধা বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত-২ পিটিশন মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-৪৮৭/১৭।  ওই মামলায় বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত থেকে মামলার ৭ জন আসামীর বিরুদ্ধে ১২ (এপ্রিল) ১৮ ইং তারিখে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী হয়। যার স্বারক নং-৯০(৭)১৮। এই গ্রেফতারী পরোয়ানা মুলে রংপুরের পীরগঞ্জ থানা পুলিশ ওই মামলার ৪ নং আসামীকে গ্রেফতার করেছে।  গত ২৬সেপ্টেম্বর-১৭ ইং তারিখে এসব অনৈতিক কার্যকলাপের তদন্ত করে উপ-পরিচালক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুর, যার স্বারক নং-১২৫২(২) তারিখ-০৬সেপ্টেম্বর-১৭। এ তদন্তেও প্রমানিত হয় কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল হালিম একজন দাদন ব্যবসায়ী এবং বিভাগীয় কাজে ফাঁকীবাজ। এর বিভাগীয় তদন্তসহ আব্দুল হালিমের অনৈতিক কার্যকলাপের বিচার দাবী করছে ভুক্তভোগী মহল।

এব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শামীমুর রহমান এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না। তবে ওই কর্মকর্তা আমার নিকট দুই দিনের ছুটির আবেদন দিয়েছে।